All Festival

Mojar School - Winter Festival 2020

by মজার ইশকুল - Mojar School
Created Jul 30, 2020 | Bangladesh
৳121,499 raised of ৳1,000,000 goal 12.15%
  • 142 Donations
  • Finalized
  • 0 Likes

মজার ইশকুলঃ শীত উৎসব ২০২০, সিজন -০৬
ষড়ঋতুর বাংলাদেশে শীতকালের স্থায়িত্ব হল মূলত ডিসেম্বর থেকে ফেব্রুয়ারি। প্রতি বছর এই সময়ে তীব্র শীতের প্রকোপে জবুথবু হয়ে থাকে সবাই। শীত থেকে রক্ষার জন্য হরেক রকমের শীতের পোশাক গায়ে চাপায় সামর্থ্যবানরা। কিন্তু, একাধিক শীতের পোশাকও যেন এই হাড় কাঁপানো শীত থেকে রক্ষা করতে হিমসিম খায়। শীতের প্রকোপ থেকে বাঁচা এই দৃশ্য যে সমাজের সব জায়গায় যে এক তা কিন্তু নয়। আমাদের আশেপাশে থাকা সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের জন্য শীতকাল যেন কঠিন যুদ্ধ। রাস্তায় বেড়ে উঠা পথশিশুদের এই তীব্র শীতেও থাকে না গায়ে জড়ানোর মত একটি পোশাক। তীব্র শীত থেকে রক্ষার জন্য কখনো রাস্তার ময়লায় আগুন জ্বালিয়ে তাপ পোহায়, কখনো বা শীতের কষ্ট ভুলতে মাদকের দিকে ঝুঁকে পড়ে।
সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের জন্য শীতের পোশাকের প্রয়োজনীয়তা অনুধাবন করতে পেরে ২০১৩ সাল থেকে শীত উৎসব এর আয়োজন করে আসছে মজার ইশকুল। মজার ইশকুল বিগত ০৮ বছর ধরে শীত উৎসব এর মাধ্যমে পথশিশুদের কাছে শীতের পোশাকরূপে উষ্ণতা পৌঁছে দেওয়ার কাজটি করে আসছে সুনিপূণভবে।
২০১৩ সালের ১ম সিজনে শিশুদের হাতে কম্বল তুলে দিলেও পরবর্তী সিজনগুলোতে শিশুদের প্রয়োজনীয় জ্যাকেট প্রদান করি আমরা। তীব্র শীত থেকে রক্ষা পাওয়ার জন্য কম্বল এর তুলনায় জ্যাকেটকেই অধিকতর শ্রেয় বলে মনে হয়। তাছাড়া, জ্যাকেট গায়ে সারাদিন থাকা যায় বিধায় তা চুরি বা হারিয়ে ফেলার সম্ভাবনা কমে যায় অনেকখানি। তাই, প্রতি শীতে পথশিশুদের হাতে টুকটুকে লাল শীতের জ্যাকেট তুলে দেওয়াই থাকে আমাদের লক্ষ্য।
মজার ইশকুল এর ০৮ টি ইশকুল, ০৪ টি স্থায়ী ইশকুল ও ০৪ টি খোলা আকাশের নিচে পরিচালিত ইশকুলের নিয়মিত শিশুদের নিয়ে মজার ইশকুলঃ শীত উৎসব এর আয়োজন হয়। এর সাথে যুক্ত থাকে রাজধানী ঢাকার একাধিক অস্থায়ী পয়েন্ট যেখানে পথশিশুদের সংখ্যা বেশি এবং মজার ইশকুল তার ভবিষ্যৎ কার্যক্রম শুরু করতে ইচ্ছুক। ২০১৯ সালে প্রথমবারের মত বিভাগীয় পয়েন্টেও মজার ইশকুলঃ শীত উৎসব আয়োজিত হয়।
প্রতিটি শীত উৎসব আয়োজন করার পূর্বে কমপক্ষে দুই মাসের প্রস্তুতি গ্রহণ করে মজার ইশকুল এর স্বেচ্ছাসেবী টিম। প্রতিটি শিশুর জ্যাকেটের মাপ নেওয়া, বাজার ঘুরে ভালোমানের কাপড় বাছাই করা, জ্যাকেট তৈরীর কারখানায় স্বশরীরে উপস্থিত থাকা, প্রতিটি শিশুর মাপ অনুযায়ী জ্যাকেট ভাগ করা এবং সবশেষে শিশুদের হাতে তাদের নিজের মাপের লাল টুকটুকে শীতের জ্যাকেটটি পৌঁছে দেওয়ার সম্পূর্ণ কাজ সম্পন্ন হয় স্বেচ্ছাসেবীদের প্রত্যক্ষ অংশগ্রহণে।
২০২০ সালে, মজার ইশকুলঃ শীত উৎসব ২০২০, সিজন ০৬ এর মাধ্যমে মোট ৫০০০ সুবিধাবঞ্চিত পথশিশুকে প্রদান করা হবে উন্নতমানের লাল টুকটুকে শীতের জ্যাকেট।
৫০০০ সুবিধাবঞ্চিত শিশুর কাছে উষ্ণতা পৌঁছে দেওয়ার এই যাত্রার সঙ্গী হতে ডোনেট করুন আজই। মাত্র ৬০০ টাকা নিশ্চিত করবে ০১ জন সুবিধাবঞ্চিত শিশু উষ্ণতা।
১ জন সুবিধাবঞ্চিত শিশুর জন্য ৬০০ টাকা
৫ জন সুবিধাবঞ্চিত শিশুর জন্য ৩,০০০ টাকা
১০ জন সুবিধাবঞ্চিত শিশুর জন্য ৬,০০০ টাকা
৫০ জন সুবিধাবঞ্চিত শিশুর জন্য ৩০,০০০ টাকা
১০০ জন সুবিধাবঞ্চিত শিশুর জন্য ৬০,০০০ টাকা
৫০০০ সুবিধাবঞ্চিত শিশুকে শীতের প্রকোপ থেকে রক্ষা করতে এই লিংকের মাধ্যমে ডোনেট করতে পারেন আপনিও।
https://odommobangladesh.org.bd/donation/campaign/6/mojar-school-winter-festival-2020
বিকাশ অ্যাপ এর মাধ্যমে ডোনেট করুন,
https://bit.ly/bKash_MojarSchool
  • Abu Sayeed
    Abu Sayeed donated ৳100
    2 months ago
  • Shiplu
    Shiplu donated ৳200
    2 months ago
  • Anonymous
    Anonymous donated ৳200
    2 months ago
  • Anonymous
    Anonymous donated ৳1,000
    2 months ago
  • Rayta Amin
    Rayta Amin donated ৳100
    2 months ago
  • Mahbubul Alam
    Mahbubul Alam donated ৳1,000
    3 months ago
  • Nabila
    Nabila donated ৳500
    3 months ago
  • Farhin Sadek Shahrin
    Farhin Sadek Shahrin donated ৳600
    3 months ago
  • Anonymous
    Anonymous donated ৳300
    3 months ago
  • Anonymous
    Anonymous donated ৳20
    3 months ago
  • https://fb.watch/2Jf1h1a6uz/

    মজার ইশকুলঃ শীত উৎসব ২০২০ , সিজন ৬

    আমাদের কোন প্রফেশনাল ভিডিও মেকার নেই, মোবাইলে ভিডিও করতে লাগে ৫ মিনিট, সেই মোবাইলেই এডিট করতে লাগে ৫ মিনিট । এখন পর্যন্ত ঢাকার ৪ পয়েন্টের পথশিশুদের মাঝে লাল সবুজ জ্যাকেট প্রদান করা হয়েছে। মোবাইল দিয়ে ৪ টি ভিডিও বানানো হয়েছে আর এডিট করা হয়েছে FilmoraGo দিয়ে ।

    লাইক, শেয়ারের জন্য না বরং স্মৃতি ধরে রাখতেই আমাদের আগ্রহ বেশী । এটাও ঠিক ডকুমেন্টস সম্মানিত ডোনারদের কাছে স্বচ্ছতা নিশ্চিত করে ।

    এক হাজার সুবিধাবঞ্চিত শিশুকে জ্যাকেট দেয়ার যে লড়াই তা শেষ না হওয়া পর্যন্ত আমরা চেষ্টা করতে চাই। ৫০০ জনের প্রস্তুতি আমাদের আছে, আরও ৫০০ জনের জন্য আপনাদের সহযোগিতা প্রয়োজন ।

    Donate Now -
    https://odommobangladesh.org.bd/donation/campaign/6/mojar-school-winter-festival-2020

  • ঢাকার পথশিশুরা রাস্তায় ঘুরে, এঁটো খাবার খায়, নেশা করে, খোলা আকাশের নিচে ঘুমায়। কাটাঁ ছেড়া থাকে, রক্ত বের হয়, শরীরে পচন ধরে। ক্ষুধার জ্বালায় কান্না করে। ব্যস্ত শহুরে মানুষ সময়ের ফাঁক গলে একটু সময় বের করে পাশে থাকে। এই উষ্ণ ভালবাসা টুকু পথশিশুদের নির্ভরতা দেয়।

    বাদ পরে যায় নদী ভাংগনে নিঃস্ব হয়ে যাওয়া মানুষ গুলো। পথশিশুরা কিন্তু মাটি ফুরে বের হয় না। মায়ের গর্ভ থেকে আসে, সেই মা কিন্তু ভেসে আসে না। সর্বোচ্চ অসহায় অবস্থায় আসলে সন্তানকে বাচাতে তাকে ছেড়ে দেয়, নিজের ব্যর্থতা মেনে নিয়েই যদি সন্তান বেঁচে থাকে এই আশায় । বিভিন্ন জেলা থেকে ঢাকায় এসে সেই শিশুদের আমরা পোশাকি নাম দেই পথশিশু।

    ঢাকার কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশন, সদরঘাট লঞ্চ ঘাট, শাহবাগের উদ্যান, ধানমন্ডির লেকের পথশিশুদের আমরা যত দ্রুত শীতের লাল-সবুজ জ্যাকেট দিতে পেরেছি। বিগত ৮ বছর লড়াই করে যাদের আমরা স্বাভাবিক শিক্ষায় যুক্ত করেছি তাদের জ্যাকেট দিতে এখনো পারিনি। কারন, তারা এখন টোকাই না, নেশা করে না, চুরি করে না, প্রতিদিন স্কুলে যায়। ক্লাস ওয়ান থেকে সিক্স পর্যন্ত প্রায় ৮০০ শিক্ষার্থী পড়ে ফ্রি, শুভাকাঙ্ক্ষীদের সহযোগিতায়। । যে শিশুটি ৮ বছর লড়াই করছে নিজেকে যোগ্য মানুষের কাতারে আসতে, তাকে একটা শীতের জ্যাকেট আমরা দিতে পারছি না কারন সে এখন পথে থাকে না, রাস্তায় ঘুমায় না।

    সে সমাজের বোঝা হতে চায় না, এটাই কি অপরাধ? এখনো ৫০০ সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের জ্যাকেট দরকার। যে কোন এমাউন্ট ডোনেট করুন -

    https://odommobangladesh.org.bd/donation/campaign/6/mojar-school-winter-festival-2020

    https://fb.watch/2JeHbKcuC1/

    যত সম্ভব #শেয়ার দিন, কেউ হয়তো এগিয়ে এসে পাশে দাঁড়াতে পারে এই পথশিশুদের।