2000 kg mangoes sold out on 100% advance payment

মজার দোকান:: Mojar Shop has been able to sell out 2000 kg of the famous Lengra mango brought directly from Rajshahi. Using the experience of selling Dinajpur’s litchi, মজার দোকান:: Mojar Shop brought 2000 kg lengra mangoes from Rajshahi. Although it was the first time for us in selling mangoes, our success rate can easily be proven by the ebullience of customers.

মজার দোকান:: Mojar Shop is always determined to deliver the best product to the customer. To find the best quality mangoes, a team of মজার দোকান:: Mojar Shop left Dhaka for Rajshahi on 13 June 2020. After reaching there, our team continued their quest for best mangoes. This team in Rajshahi went to the biggest wholesale market of Baneshwar, Rajshahi, visited more than 30 gardens with the opinion of the locals for the best mangoes and continued to give a regular update about mangoes in মজার দোকান:: Mojar Shop ‘s official Facebook page. In the meanwhile, another team, who was in Dhaka, was regularly communicating with customers and confirming orders for mangoes. By 19 June 2020, our team finally chose the best garden to collect premium quality mangoes and regular updates were given on Facebook page through Facebook Live. We tried our best to inform the customers about every detail update including mango packing, loading in the pickup, and sending to Dhaka through Facebook Live.

After staying in Rajshahi for 10 days, on the night of June 22, our team left Rajshahi for Dhaka with mangoes. After the arrival of Mango on the morning of 23rd June 2020, the work of our delivery team began. We handled the home delivery process in Dhaka by dividing our manpower into two teams. Besides, orders outside Dhaka were sent by courier on the 1st day. Although we aimed to deliver all orders in 1 day, it took 3 days due to traffic jams in Dhaka. Finally, on June 25, 2020, we were able to complete all our deliveries.

Our biggest achievement in this journey of delivering mangoes to the customer is “gaining the trust and satisfaction of the customer”. One hundred percent of the total 56 orders of 2000 kg mangoes had advance payment and the order cancellation rate was 0%. This data proves our acceptability to the customer. One of our customers should be mentioned as an example of the trust that মজার দোকান:: Mojar Shop has created. The customer ordered mangoes worth tk 17,010 from the মজার দোকান:: Mojar Shop alone and paid the full amount in advance before receiving the product. Such an unshakable trust of the customer makes our work a success.

মজার দোকান:: Mojar Shop places the importance of customer satisfaction. So at the end of the day, the customer’s feedback inspires us the most. We got positive feedback from every customer who orders mango. Numerous customers called us with the question of whether mangoes will be brought again. Our service was praised in the comments section and inbox of the page. Many customers are already giving advance orders for next year. One of our customers wrote in his feedback, “Today I received the best lengra mangoes in the history of the last 5 years. I never imagined I would get such a premium quality mangoes”. Another customer commented, “64 pieces of extraordinary mangoes in 20 kg. I am fascinated to see your lengra mango ”. It is these customer feedbacks that inspire us to work.

In 2020, We had 56 customers who brought mangoes from us and we earned tk 45,000 as profit by selling mangoes this year. 100% of this profit will be used to improve the quality of life of Odommo Bangladesh Foundation’s initiative Mojar School’s children and build a street child-free Bangladesh. Next year we are willing to sell 10 times more mangoes. We think we can easily reach this goal if we have your love and support.

১০০% অগ্রীম পেমেন্টে ২০০০ কেজি রাজশাহীর ল্যাংড়া আম সোল্ড আউট করলো মজার দোকান:: Mojar Shop

 

রাজশাহীর উৎপাদনকারীর কাছ থেকে সরাসরি নিয়ে আসা বিখ্যাত ল্যাংড়া আমের ২০০০ কেজিই সম্পূর্ণরূপে সোল্ড আউট করতে সক্ষম হয়েছে মজার দোকান:: Mojar Shop। দিনাজপুরের লিচু বিক্রি করার অভিজ্ঞতাকে কাজে লাগিয়ে প্রথমবারের মত রাজশাহীর উৎপাদনকারীর থেকে ল্যাংড়া আম নিয়ে আসে মজার দোকান:: Mojar Shop এর টীম। ল্যাংড়া আম বিক্রির প্রক্রিয়ায় আমরা ১০০% সফলতা পেতে সক্ষম হয়েছি তা কাস্টমারদের উচ্ছ্বাসের মাধ্যমেই প্রমাণিত হয়।

মজার দোকান:: Mojar Shop কাস্টমারের নিকট সেরা পণ্যটি পৌঁছে দিতে বদ্ধ পরিকর। রাজশাহীর সেরা আমটি নিজেদের কাস্টমারের জন্য খুঁজে বের করতে মজার দোকান:: Mojar Shop এর একটি টীম গত ১৩ জুন ২০২০ তারিখে ঢাকা থেকে রাজশাহীর উদ্দেশ্যে রওনা দেয়। এরপরই শুরু হয় সেরা আমের খোঁজ। রাজশাহীর বানেশ্বরের সবচেয়ে বড় পাইকারী বাজারে ঘুরে সেরা আমের সন্ধান করা, স্থানীয়দের মতামত নিয়ে ৩০ টার বেশি বাগান ঘুরে দেখা, নিয়মিতভাবে আমের আপডেট জানানোর কাজগুলো করতে থাকে রাজশাহীতে থাকা এই টীম। পাশাপাশি ঢাকায় একটি টীম আমের অর্ডার কনফার্ম করা, কাস্টমারদের সাথে নিয়মিতভাবে যোগাযোগ করার কাজটি চালিয়ে যেতে থাকে। ১৯ জুন ২০২০ তারিখ থেকে আমের বাগান ও গাছ কনফার্ম করে ফেসবুক লাইভের মাধ্যমে পেজে আপডেট দেওয়া শুরু হয়। আম পাড়া, প্যাকিং, পিকআপে লোড এবং ঢাকায় পাঠানোসহ প্রতিটি আপডেট আমরা ফেসবুক লাইফের মাধ্যমে কাস্টমারদের অবহিত করি।

দীর্ঘ ১০ দিন রাজশাহীতে অবস্থানের পর ২২ জুন রাতে আমাদের টীম আম নিয়ে রাজশাহী থেকে ঢাকার উদ্দেশ্যে রওনা হয়। ২৩ জুন ২০২০ তারিখ ভোরে আম ঢাকায় পৌছানোর পর কাজ শুরু হয় আমাদের ডেলিভারি টীমের। দুইভাগে ঢাকার অর্ডারগুলো হোম ডেলিভারি দিতে কাজ করে আমাদের টীম। পাশাপাশি ঢাকার বাইরের অর্ডারগুলো ১ম দিনই কুরিয়ারের মাধ্যমে পাঠিয়ে দেওয়া হয়। আমাদের ১ দিনেই সকল অর্ডার ডেলিভারি করার লক্ষ্য থাকলেও ঢাকার জ্যামের কারণে তা ০৩ দিনে গড়ায়। শেষপর্যন্ত ২৫ জুন ২০২০ তারিখে আমরা আমাদের সকল ডেলিভারি সফলভাবে সম্পন্ন করতে সক্ষম হই।

কাস্টমারের কাছে আম পৌঁছে দেওয়ার এই যাত্রায় আমাদের সবচেয়ে সফলতার জায়গা হল কাস্টমারের বিশ্বাস ও সন্তুষ্টি অর্জন। ২০০০ কেজি আমের মোট ৫৬ টি অর্ডারের একশ ভাগ ছিল অগ্রীম পেমেন্ট এবং অর্ডার ক্যান্সেলেশন রেট ছিল ০%। এই উপাত্তই কাস্টমারের কাছে আমাদের গ্রহণযোগ্যতা প্রমাণ করে। মজার দোকান:: Mojar Shop কাস্টমারের নিকট যে আস্থার জায়গা তৈরি করেছে তার উদাহরণ হিসেবে আমাদের এক কাস্টমারের কথা উল্লেখ করাই যায়। উক্ত কাস্টমার মজার দোকান:: Mojar Shop থেকে একাই ১৭,০১০ টাকার আমের অর্ডার দেন এবং পুরো টাকা আম হাতে পাওয়ার পূর্বেই অগ্রীম পরিশোধ করেন। কাস্টমারের এরূপ আস্থা আমাদের পরিশ্রমকে সফল করে দেয়।

মজার দোকান:: Mojar Shop কাস্টমারের সন্তুষ্টিকে সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব দেয়। তাই দিনশেষে কাস্টমারের ফিডব্যাকগুলো আমাদের অনুপ্রেরণা যোগায়। আমের অর্ডার দেওয়া প্রতিজন কাস্টমারের নিকট থেকেই আমরা ইতিবাচক ফিডব্যাক পাই। পুনরায় আম আনা হবে কিনা এই প্রশ্ন নিয়ে আমাদের ফোন দেয় অসংখ্য কাস্টমার। পেজের কমেন্ট ও ইনবক্সে আমের প্রশংসা আসতে থাকে ভুরি ভুরি। অনেকে এখনই দিয়ে দেন আগামী বছরের অগ্রীম অর্ডার। আমাদের একজন কাস্টমার তার ফিডব্যাকে লিখেন, “ আজকে রিসিভ করলাম গত ৫ বছরের ইতিহাসে সেরা ল্যাংড়া আম। এত প্রিমিয়াম কোয়ালিটির আম পাবো কল্পনা করি নাই”। অন্য এক কাস্টমার কমেন্ট করেন, “ ২০ কেজিতে ৬৪ পিস এক্সট্রা অর্ডিনারি সাইজের আম। মুগ্ধ আপনাদের ল্যাংড়া আম দেখে”। কাস্টমারের এই ফিডব্যাকগুলোই আমাদের কাজ করার অনুপ্রেরণা যোগায়।

২০২০ সালে রাজশাহীর ২০০০ কেজি ল্যাংড়া আম বিক্রিতে আমাদের মোট কাস্টমারের সংখ্যা ছিল ৫৬ জন এবং এ থেকে আমরা ৪৫,০০০ টাকা লাভ করতে করি। উক্ত টাকার ১০০% ই অদম্য বাংলাদেশ ফাউন্ডেশন এর উদ্যোগ মজার ইশকুল পথশিশুদের জীবনমান উন্নয়ন ও পথশিশুমুক্ত বাংলাদেশ গড়ার লক্ষ্যে ব্যবহৃত হবে। আগামী বছর আমরা ১০ গুণ বেশি আম বিক্রি করতে ইচ্ছুক। আপনাদের ভালবাসা ও বিশ্বাস অটুট থাকলে আমরা এই লক্ষ্য সহজেই ছুঁতে পারব বলে মনে করি।