#QualityEducation

মানসম্মত শিক্ষা

মজার ইশকুল প্রতিনিয়ত চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে যেন আমরা পথশিশু শব্দটি থেকে ‘পথ’ শব্দটি মুছে শুধু ‘শিশু’ উচ্চারণ করতে পারি, তাদের জন্য একটি সুন্দর জীবন নিশ্চিত করে রেখে যেতে পারি। পথশিশুমুক্ত বাংলাদেশ গড়া আমাদের লক্ষ্য, বিভিন্ন জায়গায় তা উঠে এসেছে। কিন্তু সেই লক্ষ্যে পৌঁছাতে আমরা কী করছি?

খাদ্য – শিক্ষা – চিকিৎসা – প্রযুক্তি স্লোগানের আওতায় সবার আগে শিশুদের জন্য আমরা নিশ্চিত করছি পুষ্টিকর ও স্বাস্থ্যসম্মত খাদ্য। এরপরই তাদের জন্য আমরা নিশ্চিত করছি মানসম্মত শিক্ষা।

এখন প্রশ্ন আসতে পারে, মানসম্মত শিক্ষা বলতে আমরা কী বুঝি? কিংবা কী ধরনের শিক্ষা আমরা নিশ্চিত করছি? এক্ষেত্রে বলা যায়, আমাদের স্থায়ী ইশকুলগুলোতে, সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের গড়ে তোলার জন্য আমরা যে ধরনের দক্ষতাভিত্তিক শিক্ষার প্রতিশ্রুতি দিচ্ছি, তা আমরা পুরোপুরি নিশ্চিত করতে পারছি। পাশাপাশি তাদের নৈতিক বিকাশ, সহশিক্ষামূলক কার্যক্রম এ সকল বিষয়ের প্রতি লক্ষ্য রেখে তাদেরকে যোগ্য ও দক্ষ করে তোলার লক্ষের দিকে এগিয়ে চলছি আমরা। এছাড়াও, পুষ্টিকর খাদ্য নিশ্চিত করার মাধ্যমে তাদের দৈহিক বিকাশের দিকেও আমরা খেয়াল রাখি।

তবে খোলা আকাশের নিচে পরিচালিত মজার ইশকুলগুলোতে কিছুটা ভিন্নভাবে শিক্ষাদানের কার্যক্রমটি পরিচালিত হয়। কেননা, এ ক্ষেত্রে শিশুদের প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষাদান আমাদের মূল উদ্দেশ্য নয়, বরং তাদের সে শিক্ষা গ্রহণের জন্য প্রস্তুত করে তোলাই আমাদের উদ্দেশ্য। আমরা ওপেন ইশকুলগুলোর মাধ্যমে সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের সাথে সরাসরি যুক্ত হয়ে তাদের সুস্থ জীবনধারায় ফিরিয়ে আনার, তাদের পরিবারের সাথে থাকার গুরুত্ব, পড়াশোনার প্রয়োজনীয়তা উপলব্ধি করানোর চেষ্টা করে থাকি।

বর্তমানে মজার ইশকুলের ৮টি ইশকুলের মধ্যে ঢাকার ৪টি খোলা আকাশের নিচে পরিচালিত ইশকুলে অনানুষ্ঠানিক ও ৪টি স্থায়ী ইশকুলে জাতীয় শিক্ষাক্রমনুসারে প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা প্রদান করা হচ্ছে।

ঢাকার যে ৪টি পয়েন্টে খোলা আকাশের নিচে পরিচালিত ইশকুলে অনানুষ্ঠানিক শিক্ষা কার্যক্রম পরিচালিত হয় সেগুলো হলো – শাহবাগ, কমলাপুর, সদরঘাট ও ধানমন্ডি। স্থায়ী ইশকুলগুলোর মধ্যে ২টি ঢাকার মানিকনগর এবং আগারগাঁওয়ে অবস্থিত। ঢাকার বাইরে দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চল ভোলা জেলার মনপুরা উপজেলায় মনপুরা -১ এবং মনপুরা -২ এ ২টি স্থায়ী ইশকুল রয়েছে। স্থায়ী মজার ইশকুলগুলোতে সপ্তাহে ৫ দিন দক্ষ ও অভিজ্ঞ শিক্ষক দ্বারা জাতীয় শিক্ষাক্রম ও সুনির্দিষ্ট পাঠ্যক্রমানুসারে শিক্ষা প্রদান করা হয়।