#FreeMedicine

প্রয়োজনীয় চিকিৎসাসেবার ব্যবস্থা

২০১৩ সাল থেকে খাদ্য-শিক্ষা-চিকিৎসা-প্রযুক্তি স্লোগানে মজার ইশকুল কাজ করে যাচ্ছে সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের জন্য। এই শিশুদের জীবন মানোন্নয়নের ক্ষেত্রে আমাদের প্রধান ফোকাস থাকে তাদের নিরাপত্তা ও সুস্থতা নিশ্চিত করার প্রতি।

 

অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে বসবাস ও পুষ্টিকর খাদ্যের অভাবে স্বাস্থ্যজনিত নানা জটিলতায় আক্রান্ত হওয়া এই শিশুদের জন্য নিত্যদিনের ব্যাপার হয়ে দাঁড়িয়েছে। মজার ইশকুল এই শিশুগুলোর উন্নত ভবিষ্যত নিশ্চিত করার জন্য যা যা প্রয়োজন তার সবকিছু নিশ্চিত করতেই দৃঢ় প্রত্যয়ী।

 

স্থায়ী মজার ইশকুলগুলোতে এই শিশুদের অন্যান্য সুযোগ-সুবিধা নিশ্চিত করার পাশাপাশি প্রয়োজনীয় চিকিৎসাসেবা নিশ্চিত করাটাকেও অত্যন্ত গুরুত্ব সহকারে দেখা হয়। নিয়মিতভাবে আয়োজন করা হয় মেডিকেল ক্যাম্পের যেখানে অভিজ্ঞ চিকিৎসক দ্বারা শিশুদের চেক-আপ করানো হয়, তাদের পরামর্শ অনুযায়ী

 

 

 

বিনামূল্যে ওষুধ ও ভিটমিন দেয়ার ব্যবস্থা করা হয়। গুরুতর কোন রোগে কোন শিশু আক্রান্ত হলে তার জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের উদ্যোগও নেয়া হয়।

 

 

চিকিৎসার এই বিষয়টি খোলা আকাশের নিচে পরিচালিত মজার ইশকুলগুলোর শিশুদের জন্যও সমানভাবে গুরুত্বপূর্ণ। পথে থাকা এই শিশুদের মাথার উপরে বটবৃক্ষের মতো ছায়া দেয়ার জন্য কেউ নেই। অধিকাংশই থাকে বাবা-মা, পরিবারের সংস্পর্শের বাইরে। সারাদিন হৈ- হুল্লোড়, ছুটোছুটি করেই কাটে। কেউ কেউ আবার বিভিন্ন পেশায় জড়িত। সারাদিন দুষ্টুমি করতে করতে মাঝে মাঝেই নানাভাবে আঘাতপ্রাপ্তহয়। কখনো পা কেটে যায়, কখনো হাত কেটে যায়। ব্যথা নিয়ে চলে আসে মজার ইশকুলের কোন এক স্বেচ্ছাসেবী ভাইয়া বা আপুর কাছে। ভাইয়া আপুরাও যেন প্রস্তুত থাকে সবসময়! নিজেদের কাছে রেখে দেয় প্রাথমিক চিকিৎসার যাবতীয় সরঞ্জাম।

 

ওয়ান টাইম ব্যান্ডেজ, তুলা সবকিছুই থাকে নিজেদের ব্যাগে।পরম মমতায় প্রাথমিক চিকিৎসা পেয়ে থাকে সুবিধাবঞ্চিত পথশিশুরা। মজার ইশকুলের প্রতিটি ক্লাসেই স্বেচ্ছাসেবীদের কাছে থাকে ফার্স্টএইড বক্সের সরঞ্জাম। ক্লাসে কোন শিশু সামান্য আঘাতপ্রাপ্ত হলেও যেন প্রাথমিক চিকিৎসা নিশ্চিত করা যায়। বেশি গুরুতর অবস্থা হলে শিশুকে হাস্পাতালে নিয়ে গিয়ে চিকিৎসা নিশ্চিত করতেও পিছপা হয় না স্বেচ্ছাসেবীরা।

এভাবেই মজার ইশকুল সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের পাশে আছে তাদের আস্থা ও নির্ভরতার অনেক বড় একটা জায়গা হয়ে।